সিলেটে আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস পালিত

সিলেট প্রতিনিধিঃ 
আদিবাসী অধিকার বিষয়ক জাতিসংঘ ঘোষণাপত্রে অনুমোদন ও সাংবিধানিক স্বীকৃতির দাবী জানিয়ে আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উপলক্ষে ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন সিলেটের উদ্যোগে এক আলোচনা সভা গতকাল ৯ আগস্ট বৃহস্পতিবার পোড়াবাড়ী (ইসলামপুর) শ্রীশ্রী মহাপ্রভু আখড়া প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়।
ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন সিলেটের সহ সভাপতি প্রান্ত রিছিল এর সভাপতিত্বে ও মিলন উরাং এর পরিচালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ সিলেট মহানগর সভাপতি এডভোকেট মৃত্যুঞ্জয় ধর ভোলা। প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য ও সিলেট জেলা সাধারণ সম্পাদক কমরেড সিকান্দর আলী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট সদর উপজেলা টুকেরবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ শহীদ আহমদ, ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা মারিয়ান চৌধুরী মাম্মী, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর কেন্দ্রীয় সদস্য ও সিলেট জেলা সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা চৌধুরী, সহ সাধারণ সম্পাদক সারথী উরাং। বক্তব্য রাখেন এসোসিয়েশনের সভাপতি দানেস সাংমা, ছাত্র মৈত্রী টিলাগড় শাখার আহবায়ক সিদ্দিকুর রহমান বিলাল। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এসোসিয়েশনের কোষাধ্যক্ষ পূর্বাচরণ গঞ্জু। গীতা পাঠ করেন আলোমনি গঞ্জু।
কমরেড সিকান্দর আলী বলেন, আদিবাসীদের অধিকার কোন বিচ্ছিন্ন দাবী নয়, এটি মানবাধিকার। আদিবাসীদের ভূমিখেকোদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর সময় এসেছে। স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন সময় দেশের যে সকল আদিবাসী প্রাণ বাঁচাতে ভারত গিয়েছিল, তাদের ভূমিগুলো একশ্রেণির ভূমিখেকোরা গ্রাস করার চেষ্টা করছে। তারা ক্ষুদ্র নৃ-তাত্তিক জনগোষ্ঠির উপর অন্যায়, অবিচার করে। যার ফলে আদিবাসীগণ আজ ভূমিহীন হয়ে কষ্ট করে জীবন যাপন করছেন। সময় এসে আদিবাসী জনগোষ্ঠীকেও তাঁদের সমস্যা ও সংকট নিয়ে সোচ্চার হওয়ার। তাদের অধিকার আদায়ে পাশে রয়েছে ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা। তিনি আদিবাসী সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হয়ে আদিবাসীর সকল অধিকার আদায়ে কাজ করে যাচ্ছেন। আদিবাসীদের সাহায্য ও সহযোগিতা করতে পার্টির সভাপতি ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন সর্ব ধরনের সেবা নিশ্চিতের লক্ষ্যে কাজ করছেন। তিনি বলেন, আদিবাসীদেরকে শিক্ষা, সংস্কৃতি, সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে রেখে টেকসই উন্নয়ন সম্ভব নয়। আদিবাসী জনগোষ্ঠীকে তাঁদের সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য বজায় রেখে উন্নয়ন কার্যক্রমে যতবেশী সম্পৃক্ত করা যাবে রাষ্ট্রের সার্বিক উন্নয়ন তত বেশী তরান্বিত হবে।
আদিবাসী গোষ্ঠীর মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়।

No comments

Powered by Blogger.