মায়ের লাশের পাশে তিন বছরের শিশুকে রেখে পালিয়েছে বাবা

মনির হোসেন, বরিশাল || 
গৃহবধূ রোজি বেগমের (২৫) লাশের পাশে তার একমাত্র তিনবছরের শিশু কন্যাকে বসিয়ে রেখে শেবাচিম হাসপাতালে লাশ ফেলে পালিয়েছে পাষন্ড স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যরা। দাম্পত্য কলহের জেরধরে ওই গৃহবধূকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যার অভিযোগ ওঠায় ময়নাতদন্ত শেষে বুধবার রাতে নিহতের লাশ তার বাবার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
মৃত রোজি বেগম জেলার উজিরপুর উপজেলার বাহেরঘাট এলাকার রফিকুল ইসলামের স্ত্রী। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন নিহতের ছোট ভাই রাজু আহম্মেদ। জানা গেছে, গত চার বছর আগে উজিরপুরের ভবানীপুর গ্রামের আব্দুর রশিদ মোল্লার কন্যা রোজি বেগমের সাথে বাহেরঘাট গ্রামের আব্দুল হক মোল্লার পুত্র রফিকুল ইসলামের সাথে সামাজিকভাবে বিবাহ হয়। সাংসারিক জীবনে তাদের আয়শা সিদ্দিকা নামে তিন বছরের এক কন্যা শিশু রয়েছে।
রাজু আহম্মেদ জানান, চার মাস পূর্বে রফিকুল ইসলাম সৌদি থেকে দেশে ফিরে আসেন। পরবর্তীতে সে কাউকে কিছু না জানিয়ে প্রায় সাত বছর আগে বিচ্ছেদ হওয়া পূর্বের স্ত্রী দোলনা বেগমকে বিবাহ করে ঘরে তোলেন। দুই স্ত্রীকে নিয়ে একই বাড়িতে থাকার পর থেকে তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহ দেখা দেয়।
মৃত রোজি বেগমের পিতা আব্দুর রশিদ মোল্লা জানান, মঙ্গলবার দিবাগত রাত দুইটার দিকে রোজি অসুস্থ্য হয়ে পরেছে বলে বুধবার সকালে তার শশুর বাড়ি থেকে জানানো হয়। এরপর খোঁজ নিয়ে তারা জানতে পারেন রোজিকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে আনা হয়েছে। বুধবার দুপুরে তারা হাসপাতালে এসে রোজির লাশের পাশে তার তিন বছরের শিশু সন্তান ছাড়া আর কাউকেই পায়নি। আব্দুর রশিদ মোল্লা আরও জানান, তার কন্যা রোজিকে পরিকল্পিতভাবে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে উজিরপুর থানার ওসি শিশির কুমার পাল জানান, এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

No comments

Powered by Blogger.