অবশেষে ৪০ ঘন্টা পর দেখা মিললো নিমজ্জিত অবস্থায় নবম শ্রেনীর ছাত্রী নিলার ভাসমান লাশ

মশিউর রহমান,বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ 
বাকেরগন্জের ফরিদপুর ডিসি রোডের কারখানা নদীতে নিমজ্জিত ট্রলারের যাত্রী নবম শ্রেনীর ছাত্রী নীলার ভাসমান লাশ সোমবার দিবাগত রাত সারে তিনটায় ডিসি রোডের দোকানদার জাহাংগীর রাড়ী, রিয়াজ খান, হিরন শিকদার, রাসেল রাড়ী সহএলাকাবাসী উদ্ধার করে। রাত ২ টার দিকে ডিসি রোডের দোকান নদীগর্ভেতলিয়ে যাচ্ছে এধরনের খবর পাবার পর দোকানদার গন তাদের আত্বীয় স্বজন সহ ডিসি রোডে আসেন। এসময় ডিসি রোডের টার্মিনালের সামনে লাশ ভাসতে দেখা যায়। নৌকা যোগার করে নদীতে বের হতেহতে লাশটি পশ্চিম ফরিদপুর মল্লিক বাড়ির সামনে যায়। পরবর্তীতে নিহতের বাবা মা ও এলাকাবাসী মল্লিক বাড়ির পুকুরের কোনা যা নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে সেখান থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়, লাশ উদ্ধারের সময় নীলার গায় ওড়না ছিল। কাধে ভ্যানিটি ব্যাগ ছিল। বাম পায়ে স্যান্ডেল ছিল।মাথার চুল একটি মাদার গাছের ডালের সহিত প্যাচানো ছিল।
এদিকে নীলার লাশ পাবার পর নীলার বাড়িতে এক রিদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনা হয়। কান্নায় আকাশ বাতাস ভারী হয়ে ওঠে। আজ ১৯ শে জুন মংগলবার সকাল সাড়ে আটটায় নীলার নিজ বাড়িতে তার নামাজের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। ইতিমধ্যে নীলার পরিবারকে জাতীয় পার্টির মহা সচিব রুহুল আমিন হাওলাদার ৫০ হাজার টাকা দেবার ঘোষনা দেন। বাকেরগন্জের এম পি নাসরিন জাহান রত্না আমিন নীলার পরিবারের দায়িত্ব নেন। বাকেরগন্জের উপজেলা চেয়ারম্যান সামসুল আলম চুন্নু। বাকেরগন্জ আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক পৌর মেয়র লোকমান হোসেন ডাকুয়া এবংআওয়ামীলীগের বাকেরগন্জের সাংগঠনিক সম্পাদক , কাকরধা হাই স্কুলের সভাপতি মীর মো:মহসীন নিহত নীলার বাড়ি যান। তাৎক্ষনিক ভাবে উপজেলা চেয়ার ম্যান নীলার রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়াঅনুষ্ঠানের জন্য ১০ হাজার টাকা দেন।
গত১৭ জুন সকাল সাড়ে ১১ টায় অবহেলায় নয় প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারনে ৪০ জন যাত্রী নিয়ে ট্রলার ডুবে যায়।সবাই সাতরে তীরে উঠলেও তিন জন নিখোজ হয়। ইতিমধ্যে বরিশাল জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, বাকেরগন্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী সালেহ মুস্তানজির, বাকেরগন্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মাসুদুজ্জামান, সহকারী কমিশনার ভূমি উর্মি ভৌমিক, শর্ষী তদন্ত কেন্দ্রের ওসি আনোয়ার হোসেন, ফরিদপুর ইউ পি চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান সিকদার। জাতীয় পার্টির ইউনিয়ন সভাপতি আলমগীর হাওলাদার, কাকরধা হাই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য নওরোজ হীরা, ইউ পি সদস্য এনায়েত হেন হিরন শহিদুল ইসলাম, নৌবাহিনী, কোষ্টগার্ড, পুলিশের একাধিক টিম ২ দিন ঘটনাস্হলে অবস্হান করেন।

No comments

Powered by Blogger.