বাকেরগঞ্জের কারখানা নদী পাড়াপারে ট্রলার ডুবি, নিখোঁজ-৪

মশিউর রহমান,বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি || 
বাকেরগঞ্জ কারখানা নদীর (ডিসি রোড) খেয়া পাড়াপাড়ের সময় নদী ভাঙ্গনের কবলে পরে যাত্রী সহ ট্রলার ডুবে গিয়ে ৪ জন যাত্রী নিখোঁজ রয়েছে। গত ১৭ ই জুন সকাল ১১ টায় ট্রলার ডুবির ঘটনার পর পরই কোষ্ট গার্ডের ওয়ারেন্ট অফিসার (সিপিও) এম মিজানুর রহমান এর নেতৃত্বে ৩ জন ডুবুরি সহ ১৬ জনের টিম ও ফায়ার সার্ভিসের একটি টিমের পাশাপাশি এলাকাবাসি উদ্ধার কাজে অংশ নেয়। নিখোঁজ ব্যক্তিরা হলেন, কাকরধা বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী লীনা আক্তার (১৪), দক্ষিন নলুয়া গ্রামের হীরনের পুত্র রিপন, ভোজ মহল গ্রামের জামাল চাপরাশীর পুত্র মো. ইমরান (১৪) এবং বাউফল উপজেলার জুনিয়া গ্রামের আল আমিনের কন্যা হাফসা (৪)। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও সাবেক মন্ত্রী আলহাজ্ব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, বরিশাল-৬ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম নাসরিন জাহান রতনা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী সালেহ্ মুস্তানজির, থানা অফিসার ইনচার্জ অা: জা: মো: মাসুদুজ্জামান, ইউপি চেয়ারম্যান সহ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আহসান হাবিব প্রমুখ। জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও সাবেক মন্ত্রী আলহাজ্ব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, বরিশাল-৬ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম নাসরিন জাহান রতনা নিখোঁজ হওয়া পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে শোকাহত প্রতি পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা করে অনুদান দেন। এ সময় মহা-সচিব বলেন, আপনাদের সন্তান হারানোর শোকে সান্তনা দেবার ভাষা আমার নেই। নদী পারাপরের বিষয়ে বলেন, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা একনেকে ব্রিজটি পাশ করে অর্থ বরাদ্ধ দিলেও ব্রিজের স্থান নিয়ে বাউফল ও বাকেরগঞ্জের টানা হেচরার কারনে ব্রিজটি বাস্তবায়ন হচ্ছেনা। আপনাদের সহযোগীতায় আল্লাহ যদি আমাকে আগামীতে ক্ষমতায় যেতে দেয় তাহলে আগামী ৩ বছরের মধ্যে ব্রিজটি করব ইনশাহ্ আল্লাহ। তখন আর আপনাদের এই দুর্ভোগ হবে না। এলাকাবাসির দাবী করেন, দ্রুত কারখানা নদীর উপরে প্রস্তাবিত ব্রিজটির কাজ শুরু করে এলাকাবাসির ঝুকিমুক্ত যাতায়াতের ব্যবস্থা করা হোক। দু দিন পার হলেও ট্রলার ও নিখোজ ব্যক্তির সন্ধান মেলেনি।

No comments

Powered by Blogger.