ঝালকাঠিতে ফতোয়াবাজের ফাঁদে অন্তঃসত্তা গৃহবধু গৃহহারা


ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির রাজাপুরে স্থানীয়  কতিপয় মাওলানাদের ফতোয়ার ফাঁদে ৩ মাসের অন্তঃসত্তা লাইজু বেগম (২১) নামে এক গৃহবধু গৃহহারা হয়েছে। উপজেলার গালুয়া ইউনিয়নের ছোট গালুয়া গ্রামের আদম আলীর বিবাহিত স্ত্রী এক সন্তানের জননী লাইজু বেগমকে তার শ্বশুর মোঃ ইসমাইল খলিফা ধর্ষনের চেষ্টা করে। স্থানীয়রা জানায়, ঘটনাটি ঘটে গত ৬মে সোমবার সন্ধ্যাবেলা। ঐ দিন লাইজুর আলাদা বাড়িতে শ্বশুর মোঃ ইসমাইল খলিফা তাকে (লাইজুকে) একা পেয়ে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। এ ঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয় মাওলানারা ফতোয়া দিয়ে শ্বশুরকে জোতা পিটা করে এবং একটি প্রবাভশালী মহল ঘটনাটিকে দামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালায়। পরে লাইজুর শ্বশুর শাশুরীসহ বাড়ির লোকজন তার (শ্বশুরের) সম্মানহানি করার অপবাদে বাড়ি থেকে বের করে দেয় লাইজুকে। লাইজু নিরুপায় হয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় রাজাপুর থানায় অভিযোগ দিলে পুলিশ এ ঘটনার তদন্ত শুরু করে। এর পরেও স্থানীয় ঐ প্রবাবশালী, গ্রাম পুলিশ সোহরাব হোসেন,চাকুরীচুৎ তহসিলদার মৌজে আলী(কাইউম) ও দুলালের সহযোগীতায় তার (লাইজুর) শাশুরী স্থানীয় আঃ হক খানের ছেলে মাওলানা আঃ রহিম ও মৃত মাহাতব উদ্দিনের ছেলে আঃ ছত্তার মাওলানা ফতোয়া দিয়ে গৃহবধুকে বাড়ি থেকে বেড় করে দিতে বাধ্য করে। লাইজু তার মামাকে সাথে নিয়ে পুনরায় শ্বশুড় বাড়ি ফিড়ে আসলে শ্বশুর বাড়ির লোকজন রাস্তায় লাঠি নিয়ে অবস্থান নেয়। যার ফলে ঐ গৃহবধু শ্বশুর বাড়িতে প্রবেশ করতে পারেনি। ৩ মাসের অন্তঃসত্তা লাইজু বেগম তার ৩ বছরের সন্তানকে নিয়ে নিরুপায় হয়ে বাবার বাড়িতে ফিরে যান। শ্বশুর মোঃ ইসমাইল খলিফা এখন পালাতক রয়েছে।
এ ব্যাপারে লাইজুর স্বামী আদম আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, তার স্ত্রী লাইজু বেগমকে নিয়ে সংসার করতে তার কোন আপত্তি নেই। কিন্তু মাওলানারা বলছে এখন তুমি আর তোমার স্ত্রীকে নিয়ে সংসার করতে পারো না।
এ ব্যাপারে ফতোয়া দেয়া স্থানীয় মাওলানা আঃ রহিম এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইসলামী শরীয়ত মতে যদি কোন ব্যক্তি খারাপ উদ্দেশ্যে তার নিজের মেয়েকেও স্পর্শ করে তবে সঙ্গে সঙ্গে ওই ব্যক্তির স্ত্রী তালাক হয়ে যায়। আর এখানে লাইজুকে তার শ্বশুর ধর্ষনের চেষ্টা চালিয়েছে। সুতরাং লাইজু তালাক হয়ে গেছে, লাইজু আর স্বামীর সাথে সংসার করতে পারবে না।
এ ব্যপারে রাজাপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ শামসুল আরেফিন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ঘটনার তদন্ত চলছে, সত্যতা পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

No comments

Powered by Blogger.