সাভারে শিশু সোয়াদ হত্যা রহস্য: ধরা ছোয়ার বাইরে দুই আসামী

সাভার প্রতিনিধি | 

সোয়াদ হত্যার আড়ালে কে আছে? অন্য ২ আসামী এখনো ধরা ছোয়ার বাইরে কেনো? কেনোই বা একটি মহল যাদের নামে মামলা নেই তাদের দোষী সাব্যস্ত করতে উঠে পড়ে লেগেছে।
মঙ্গলবার (৮ মে ) রাতে এক সাক্ষাতকারে এ প্রশ্নগুলো তুলেন সোয়াদের নানা বাবুল আল মাইজ ভান্ডারী। এসময় অশ্রুসিক্ত হয়ে বলেন, আমি আমার নাতির প্রকৃত হত্যাকারীদের বিচার চাই। সে যেই হোক না কেনো! যদি সত্যই আমার মেয়ে তাকে হত্যা করে থাকে তাহলে তার শাস্তি হোক। কিন্তু অন্য আসামীরা কোথায়? ২১শে মার্চ দায়ের করা মামলায় আরো ২ জন আসামীর নাম আছে যারা এখনো পুলিশ ধরা ছোয়ার বাইরে।
গত ২০শে মার্চ, ২০১৮ইং তারিখে সাভারের ছায়াবিথী এলাকায় বাবুল ভান্ডারীর মেয়ে বাবলী আক্তারের বিরুদ্ধে তার সন্তান  সোয়াদকে হত্যার অভিযোগ উঠে। বাবলীর স্বামী মোমিন তার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ তোলেন। সেদিন গণমাধ্যমে মোমিন বলেন, পরকীয়ার জের ধরে তার স্ত্রী সোয়াদকে হত্যা করেছে। সেসময় মোমিন বাবলীর ফেসবুক বন্ধু সুমন ও রনির বিরুদ্ধেও এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ তোলেন এবং সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
সেই মামলার প্রেক্ষিতে আসামী বাবলীকে সাভার মডেল থানা পুলিশ গ্রপ্তার করে থানা  হাজতে নেয়। কিন্তু সুমন ও রনিকে এখনো পুলিশ ধরতে পারেনি বলে জানা যায়।
মামলার তদন্তের দায়িত্বে থাকা সাভার মডেল থানার উপ পরিদর্শক এনামুল এব্যাপারে বলেন, বাবলীকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছিল। সে ১৬৪ ধারায় ম্যাজিষ্ট্রেটের নিকট জবানবন্দীও দিয়েছে। মামলার তদন্তের স্বার্থে এখন সব কিছু বলা যাচ্ছে না। অন্য ২ আসামীকে কেনো ধরা হচ্ছে না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তাদের ধরার চেষ্টা চলছে।
 সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহসিনুল  কাদির বলেন, খুব শীঘ্রই মামলার চার্জশীট দেয়া হবে।
এদিকে অন্য দুই আসামী ধরা ছোয়ার বাইরে থাকলেও একটি প্রভাবশালী চক্র বাবুলকে ফাসনোর চেষ্টা চালাচ্ছে। বারবার তার বাড়িতে পুলিশ যাওয়া আসা করছে বলেও জানান বাবুল। তবে কেনো এমনটা হচ্ছে তা এখনো জানা যায়নি।
নানাবিধ কারণে বাবুল ভান্ডারি মনে করছেন তার নাতির হত্যা মামলা ভিন্ন দিকে মোড় নিচ্ছে। অনেকে এটার সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করছেন বলেও দাবি করেন তিনি। তাই ন্যায়বিচার পাওয়ার আশায় বাবুল ভান্ডারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

No comments

Powered by Blogger.