ঝালকাঠিতে দু’মন্দির কমিটি দ্বন্ধে দূর্গা মন্দির গুড়িয়ে দিয়েছে প্রতিপক্ষ



ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠিতে দু’মন্দির কমিটি দ্বন্ধে দূর্গা মন্দির ভাংচুর করে গুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার দুপুরে সদর উপজেলার কৃর্ত্তীপাশা ইউনিয়নের শংকরধবল গ্রামের হালদার বাড়ি এলাকার পাশাপাশি লোকনাথ মন্দির কমিটির সমর্থক সুজিত মিন্ত্রী এ ঘটনা ঘটায় বলে অভিযোগ করেছেন পাশ্ববর্তী দূর্গা মন্দির কমিটির সভাপতি। খবর শুনে ঝালকাঠি সদর থানার এস আই আশিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

দূর্গ মন্দির কমিটির সভাপতি সুব্রত হাওলাদার বলেন, বিগত ৮ বছর ধরে এই স্থানে দূর্গা মন্দির স্থাপন করে পূজা করে আসছি। কিছু দিন যাবত পার্শ্ববর্তী ৬/৭ হাত দুরে লোকনাথ মন্দিরের সমর্থকদের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। তারা দূর্গা মন্দিরটি ভেঙ্গে ফেলতে ষরযন্ত্র চালিয়ে আসছিল। এনিয়ে এলাকায় একাধিক বৈঠকও হয়েছে। কিন্তু আমরা মন্দিরটি ঐ স্থানেই রাখার পক্ষেই আমাদের মতামত জানিয়ে দিয়েছি। বুধবার দুপুরে লোকনাথ মন্দির কমিটির সমর্থক সুজিত মিন্ত্রী দূর্গা মন্দিরটি ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়। আমরা থানায় অভিযোগ দিয়েছি।

অপর দিকে অভিযুক্ত সুজিত মিন্ত্রী মন্দিরটি ভাঙ্গার কথা স্বীকার না করলেও তিনি পরিত্যাক্ত মন্দিরটি ঐ স্থান থেকে সরিয়ে দেয়ার কথা স্বীকার করে বলেন পার্শ্ববর্তী নির্মানাধীন লোকনাথ মন্দিরের এক পার্শ্বে দূর্গা মন্দিরের জন্য একটি কক্ষ বরাদ্ধ করে দেয়ায় ঐ পরিত্যক্ত ঘরটি দরকার ছিলনা তাই ঐ ঘরটা সড়িয়ে ফেলেছি। দূর্গা মন্দিরের টিন দিয়ে লোকনাথ মন্দিরে ছাওনি দেয়া হবে।

লোকনাথ মন্দিরের সভাপতি জীবন কৃষ্ণ ব্যাপারী বলেন, আমার উপস্থিতিতে সুজিত পরিত্যাক্ত দূর্গা মন্দিরটি সড়িয়ে ফেলেছে।

এ ব্যপারে ঝালকাঠি সদর থানা ওসি তদন্ত মোঃ তাহের বলেন, খবর পেয়ে আমি এসআই আশিকুর রহমানকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছি। তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। আগামী কাল দু’পক্ষকে থানায় ডাকা হয়েছে। এ ঘটনায় কোন পক্ষ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনি।









No comments

Powered by Blogger.