বরগুনার আমতলীতে ওরশ মাহফিলে চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলামকে প্রধান অতিথি না করায় যুবককে মেরে আহত।

ভোক বার্তা ডেক্স//বরগুনার আমতলীতে ওরশ মাহফিলে ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম মৃধাকে প্রধান অতিথি না করায় রিয়াজ মৃধা (৩০) নামের এক যুবককে কুপিয়ে ও পিটিয়ে দু’পা ও মেরুদন্ড ভেঙ্গে দিয়েছে তার সন্ত্রাসীরা বাহিনী। আহত যুবককে বরিশাল শেরই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনা ঘটেছে বরগুনার আমতলী উপজেলার উত্তর তক্তাবুনিয়া গ্রামে শুক্রবার দুপুরে।
স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের দফাদার ব্রীজ সংলগ্ন দক্ষিণ তক্তবুনিয়া গ্রামে গত ১৬ এপ্রিল কাদেরিয়া তরিকার ওরশ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ওই ওরশ মাহফিলে ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলামকে প্রধান অতিথি না করে তার সাথে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী মোঃ আসাদুজ্জামান মিন্টু মল্লিককে প্রধান অতিথি করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয় ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম মৃধা ও তার লোকজন। এ ঘটনার জের ধরে শুক্রবার দুপুরে উত্তর তক্তাবুনিয়া গ্রামের বিশ্বাস বাড়ীর সামনে ওরশ মাহফিল কমিটির পরিচালক মোঃ রিয়াজ মৃধার মোটর সাইকেলের গতি রোধ করে। পরে চেয়ারম্যানের সন্ত্রাসী বাহিনী তুহিন মৃধা, সালাউদ্দিন মৃধা, রিন্টু মৃধা, সফিউল মোল্লা, ইব্রাহিম মৃধা, শামীম মৃধা, বাবু হাওলাদার ও মোকলেস মৃধাসহ ১০/১৫ জন তাকে কপিুয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। এবং তার সাথে থাকা ৫৫ হাজার টাকা ও মোটর সাইকেল ছিনিয়ে নিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে রিয়াজ মৃধাকে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। ওই হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে আশঙ্কাজনক দেখে ঐ অবস্থায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থন পরিদর্শন করে এবং মোটর সাইকেল উদ্ধার করেছে।
আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেরে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার মিঠুন সরকার বলেন, আহত রিয়াজ মৃধার বাম পায়ের হাটুর বাটি, ডান পায়ের হাটুর নিচে (নলা) ও মেরুদন্ড ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে ভেঙ্গে দিয়েছে। তার তিনি আরও বলেন, তার সারা শরীরে আঘাতের চিহৃ রয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী সেকান্দার খান, আল আমিন খান, নান্নু হাওলাদার ও মহসীন মিয়া বলেন, রিয়াজ মৃধার মোটর সাইকেল থামিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর জখম করেছে। পরে মোটর সাইকেল ও তার সাথে থাকা সবকিছু নিয়ে গেছে। আমরা তাকে (রিয়াজ মৃধা) রক্ষায় এগিয়ে গেলে আমাদেরকেও মারধর করেছে।
আহত রিয়াজ মৃধার স্ত্রী শাহানাজ বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম মৃধাকে ওরশ মাহফিলে প্রধান অতিথি না করায় আমার স্বামীকে তার (চেয়ারম্যান) লোকজন কুপিয়ে ও পিটিয়ে দু’পা ও মেরুদন্ড ভেঙ্গে দিয়েছেন। আমি এ ঘটনার বিচার চাই। হলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম মৃধার সাথে তার মুঠোফোনে (০১৭১৪১৭৮৯০৩) বারবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।
আমতলী থানার এস আই শহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মোটর সাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে।
আমতলী থানার ওসি মোঃ সহিদ উল্যাহ বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।সংগ্রহে: যুগান্তর।

No comments

Powered by Blogger.